আমি ঠিক আছি প্লিজ কান্না ক‌রো না তুমি তো

আমি ঠিক আছি প্লিজ কান্না ক‌রো না তুমি তো, তনয়া আয়া‌তের বে‌ডের কা‌ছে গি‌য়ে আয়াতের দি‌কে তা‌কি‌য়ে নিঃশ্ব‌ব্দে

কাঁদ‌ছে। তারপর আয়া‌তের মাথায় হাত বুলা‌তে লাগ‌লো। আয়াতের এখ‌নো জ্ঞান ফি‌রে‌নি। তনয়ার চো‌খের জ‌লে মুখ

বাঁধা নেকাবটা ভি‌জে একাকার। কিছুক্ষন আয়া‌তের দি‌কে তা‌কি‌য়ে থে‌কে যেই আসা‌তে নি‌লো আয়াত তনয়ার

হাতটা ধ‌রে বস‌লো! হা‌তের ইশারায় তনয়া‌কে পা‌শে বস‌তে বল‌লো। তনয়া পা‌শে ব‌সে এক হাত দি‌য়ে আয়া‌তের মাথায়

হাত বুলা‌তে লাগ‌লো অন্য হাতটা আয়াত ধ‌রে রে‌খে‌ছে। কিছুক্ষন পর ডাক্তার আসায় তনয়া‌কে বাই‌রে চ‌লে যে‌তে হ‌লো।

আরও ভালোবাসার গাল্প পেতে ভিজিট করুউঃ bentrick.xyz

আমি ঠিক আছি প্লিজ কান্না ক‌রো না তুমি তো

বাই‌রে গি‌য়ে দে‌খে বা‌ড়ির সবাই আই সি ইউ এর বা‌ইরে দা‌ড়ি‌য়ে আছে। রা‌তে তনয়া হাসপাতা‌লে থাক‌তে চাই‌লেও

আয়া‌তের বাবা ব‌লে কাল থে‌কে থাক‌বে আজতো এম‌নি‌তেও কাউ‌কে ভিত‌রে ডুক‌তে দি‌বে না। আমি বরং এখা‌নে থা‌কি,

তারপর তনয়া, আস্ফি আর আনিকা বা‌ড়ি চ‌লে আস‌লো। সারা রাত তনয়া বিছানায় ছটফট কর‌লো। রা‌তের বে‌শির

ভাগ সময়ই তনয়া নামাজ প‌ড়ে আর আল্লাহর সা‌থে কান্না ক‌রে কা‌টি‌য়ে‌ছে। বি‌য়ের তিন বছ‌রে আয়াত‌কে ছাড়া

বা আয়া‌তের সা‌থে কথা না ব‌লে এক‌টি রাতও কা‌টে‌নি। যখন আয়াত কোন কা‌জে শহ‌রের বাই‌রে থাক‌তো বা

রা‌তে ফির‌তে পার‌তো না তখন ফো‌নে তনয়ার সা‌থে বারবার কথা বল‌তো। দুজ‌নে ফো‌নে কথা ব‌লেই রাত পার

ক‌রে দি‌তো। কিন্তু আজ প্রথমবার না‌তো আয়াত আছে না আয়া‌তের সা‌থে কথা বল‌তে পার‌ছে। রু‌মের প্র‌তিটা জি‌নিস

যে‌নো তনয়া‌কে চে‌পে ব‌সে‌ছে কারন রু‌মের প্র‌তিটা কোনায় ছ‌ড়ি‌য়ে আছে ওদের ভা‌লোবাসার স্মৃতি। তনয়া বা‌ড়ি

এসে বেশ ক‌য়েকবার আয়া‌তের বাবা‌কে ফোন দি‌য়ে আয়া‌তের বিষ‌য়ে জি‌গেস ক‌রে‌ছে। ফজ‌রের নামাজ প‌ড়ে

তনয়া আর দে‌রি কর‌লো না সামান্য কিছু নাস্তা আর

নরম খাবার বা‌নি‌য়ে আস্ফি‌কে ব‌লে হস‌পিটা‌লের উদ্দে‌শ্যে রওনা দি‌লো। হাসপাতা‌লে গি‌য়ে দে‌খে আয়া‌তের বাবা

ডাক্তা‌রের সা‌থে কথা বল‌ছেন। তনয়া বুকটা কেঁ‌পে উঠ‌লো। তারাতা‌রি তার কা‌ছে গি‌য়ে জি‌গেস করলো

আয়া‌তের হ্যা‌রে মা চিন্ত ক‌রিস না। আয়াত ঠিক আছে কিছুক্ষন পর বে‌ডে দি‌বে। প্রায় ঘন্টা খা‌নিক সময় পর আয়াত

সহ বা‌কি সবাই‌কে যার বেড বা কে‌বি‌নে দেয়া হ‌লো। আয়াত এখন অল্প অল্প কথা বল‌তে পা‌রে। য়াত‌কে বে‌ডে দেবার

কিছুক্ষন পর তনয়া আয়া‌তের বাবা‌কে এবং তনয়ার বা‌ড়ি থে‌কে আসা তনয়ার বাবা মা আর ছোট বোন‌কে বা‌ড়ি পা‌ঠি‌য়ে দি‌লেন।

বল‌লো কিছু লাগ‌লে তা‌দের ফো‌নে জান‌বে। আয়াত ঘু‌মি‌য়ে আছে আর তনয়া আয়া‌তের পা‌শে ব‌সে ওর একটা হাত শক্ত ক‌রে ধ‌রে আরেক হাত দি‌য়ে আয়া‌তের মাথায় হাত বু‌লি‌য়ে দি‌চ্ছে আর আয়া‌তের দি‌কে অপলক চো‌খে তা‌কি‌য়ে আছে।

আমি ঠিক আছি প্লিজ কান্না ক‌রো না তুমি তো

আয়া‌তের ডান হাতটা বেশ খানিকটা পু‌ড়ে গে‌ছে, কপা‌লে বেশ আঘাত পে‌য়ে‌ছে, ডাক্তার তনয়া‌কে বল‌ছে পি‌ঠের এবং কোম‌রে না‌কি বেশ খা‌নিকটা জায়গা পু‌ড়ে গে‌ছে। ত‌বে ভয় পাবার মত কিছু হয়‌নি মাস খা‌নি‌কের ম‌ধ্যে ঘা শু‌কি‌য়ে যা‌বে।

তনয়া আয়া‌তের বা হাতটা এত শক্ত ক‌রে চে‌পে ধ‌রে রাখ‌ছে যে, ম‌নে হয় হাতটা ছে‌ড়ে দি‌লে কেউ আয়াত‌কে তনয়ার কাছ থে‌কে কে‌ড়ে নি‌য়ে যা‌বে। তনয়া আয়া‌তের হাতটা নি‌জের বু‌কের সা‌থে চে‌পে ধরে ফু‌ঁপি‌য়ে কেঁ‌দে উঠ‌লো।

তনয়ার চো‌খের পা‌নি টুপ ক‌রে আয়া‌তের হা‌তে পর‌লো। আয়াত এতক্ষন চুপ থাক‌লেও এখন তনয়ার চো‌খের জল এরা‌নোর মত শ‌ক্তি আয়া‌তের নাই। আয়াত তনয়ার হাতটা শক্ত ক‌রে ধ‌রে বল‌লো।

About admin

Check Also

চোখ মেলে দেখলাম দরজা লাগানো আমার ঘরে

চোখ মেলে দেখলাম দরজা লাগানো আমার ঘরে

চোখ মেলে দেখলাম দরজা লাগানো আমার ঘরে, অর্ণব তো দূরের কথা তার ছায়াও নেই। আর …

Leave a Reply

Your email address will not be published.