রিয়া কে ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লাম সকাল বেলা

রিয়া কে ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লাম সকাল বেলা, রহিমা আন্টি ডাকতেছে,নাহিদ উঠো ইউনিভার্সিটি যাবেনা।

তাড়াহুড়ো করে ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে রেডি হলাম।তারপর রুম থেকে বের হতেই। ইভা আইছে একটা নবাব জাদা

বসে থেকে খাচ্ছে আবার ঘুম থেকেও ডেকে তুলতে হচ্ছে যত্তসব ক্ষ্যাত। আন্টি ইভা তুই চুপ থাক।নাহিদ

আসো ব্রেকফাস্ট করে নাও। নাহিদ না আন্টি লেইট হয়ে গেছে আর রুমে খাওয়ার ও টাইম নাই বাহিরে কিছু

খেয়ে নিবো আমি এখন যায়। তারপর একটা রিকশা তে উঠে ভার্সিটি চলে গেলাম রিকশা থেকে নেমে ক্যম্পাসে গেলাম।

আরও ভালোবাসার গাল্প পেতে ভিজিট করুউঃ bentrick.xyz

রিয়া কে ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লাম সকাল বেলা

হঠাৎ পিছন থেকে কেও একজন ডাকতেছে ওই চশমা পড়া কানা এই দিকে আই।তারপর আমি তাদের উদ্দেশ্য গেলাম।

কি হয়েছে ভাইয়া আর আপনারা কানা বলছেন কেনো? সবাই হাসতেছে আর বলতেছে তুই তো কানাই এত বড়

চশমা পড়স।কিরে কোন ইয়ার নতুন নাকি আমারে চিনস আমি ইউনিভার্সিটির বড় ভাই আমার নাম শামিম সবাই

আমার কথায় উঠে আর বসে আর কথা না শুনলে কেও ভার্সিটি তে থাকতে পারেনা।আমি রীতিমত ভয় পেয়ে গেলাম।

কি হয়েছে ভাইয়া আমি তো কিছু করিনি।করস নাই করবি এখন এই শাকিল গোলাপ টা দে ওর হাতে।জি মানে আমি

গোলাপ নিয়ে কি করবো।কি করবি মানে কলেজের গেইট দিয়ে এখন যে মেয়ে ফাস্টে প্রবেশ করবে তাকেই তুই

প্রপোজ করবি।না আমি প্রপোজ কেনো করবো আমি পারব না। কি ভাই হয়েছে তো শান্তি পাইলেন।আচ্ছা বলেন

তো আমাদের অপরাধ কি গ্রামের ছেলে ক্ষ্যাত আপনাদের মতো প্রভাবশালী না।আমরা তো আপনাদের

বিরক্ত করতে আসিনা ভালো করে লেখা পরা করতে আসি

বাবা মায়ের স্বপ্ন পুরন করার জন্য।জানেন আমরা অনেক আসহায় কিছু করার নাই ভালো থাকবেন আর হয়তো কলেজে আমার আসা হবেনা আজকেই শেষ দিন।

আমার সুইসাইড করতে হবে কেন জানেন আমার বাবা মা যদি শুনেন যে আমি একটা মেয়েকে বিরক্ত করার জন্য কলেজ থেকে বের করে দিছে তারা অনেক কষ্ট পাবেন আর আমি তাদের কষ্ট দিতে পারবোনা অনেক স্বপ্ন দেখেন।আমি ব্যাগ নিয়ে চলে আসতেছি মরা

দেখলাম দুই পাশে দুই দানব একজন আগুনের একজন পানির।দুইজনেরি আকৃতি মানুষেরি মতো কিন্ত তাদের দেহ বিশাল।যে পানির দানব তাকে দেকতে অনেকটা মেয়ে মানুষের দেহের গঠনের মতো হয়তো পানির দানবি মেয়ে।

রিয়া কে ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লাম সকাল বেলা

আর আগুনের দানবটা দেখতে অনেকটা ছেলের দেহের গঠনের মতো।তাদের দুই জনের মাঝে আছে একটা পাহার এবং সেই পাহারের উপরেই একটা ছোট ঘর বা কোন কিছু ছাওনির মতো। ভালোভাবে বোঝা যাচ্ছে না এতদূর থেকে।

তখন সেই তান্ত্রিক বা সাধু বললো মাঝে যে পাহাড় টা দেখছিস আমাদের সেই জাগায় যেতে হবে।এবং ওই যাগায় আছে সেই জ্বীন টা, তবে ওই যাগায় জাবি কি করে তোরা, আমিতো নিজে উরে যেতে পারবো কিন্ত তোরা।

তখন আমি বললাম সেটা তখনি আপনি নিজের চোখে দেখেন কি করে আমরা যাই।আপনি আগে যান আমরা আপনার পিছে পিছে আসতেছি।তার পর লোকটা উপরে চলে যেতে লাগলো তখন আমি আফিয়াকে বললাম

About admin

Check Also

কারও নজরে আসার আগেই সেই পানি মুছে ফেলে সে

কারও নজরে আসার আগেই সেই পানি মুছে ফেলে সে

কারও নজরে আসার আগেই সেই পানি মুছে ফেলে সে, এই বাড়িত কি ঘর কম নাকি?দরকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.